বিশ্বকাপে ৭ উইকেট শিকার করা চার বোলার

স্পোর্টসমেইল২৪ ডেস্ক স্পোর্টসমেইল২৪ ডেস্ক প্রকাশিত: ১১:৩৭ এএম, ১০ মে ২০১৯
বিশ্বকাপে ৭ উইকেট শিকার করা চার বোলার

বিশ্বকাপে সাধারণত ব্যাটসম্যানদেরই জয় জয়কার থাকে। তারাই টুর্নামেন্টে একক প্রাধান্য বিস্তার করে এবং স্পট লাইটটা থাকে তাদের ওপরই। তবে সেরা ও সবচেয়ে বেশি থিতু এবং ভিন্নতা সম্পন্ন বোলিং আক্রমণ বিভাগ থাকা দলই বিশ্বকাপ শিরোপা জয় করে।

১৯৭৫ ও ১৯৭৯ আসরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবা ১৯৮৩ ও ২০১১ আসরে ভারত কিংবা ১৯৯৯, ২০০৩ এবং ২০০৭ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া প্রতিবারই শিরোপা জিতেছে তাদের শক্তিশালী বোলিং বিভাগের কারণে।

তাই একথা বলাই যায় একটা দলের শিরোপা জয়ে বরাবারই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে বোলাররা। বিশ্বকাপ ইতিহাসে এক ম্যাচে সাত উইকেট শিকার তথা সেরা চার বোলিং ফিগার

টিম সাউদি (নিউজিল্যান্ড)
৭/৩৩ প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড(২০১৫)
আইসিসি বিশ্বকাপের কোন ম্যাচের এক ইনিংসে সাত উইকেট শিকার করা চতুর্থ ও অতিসাম্প্রতিক বোলার হচ্ছেন নিউজিল্যান্ডের টিম সাউদি।

ওয়েলিংটনে ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫ আসরের নবম ম্যাচে টিম সাউদির বোলিং তান্ডবে মাত্র ১২৩ রানে গুটিয়ে যায় ইংল্যান্ড। ৩৩ রানে ৭ উইকেট শিকার করেন তিনি। নিউজিল্যান্ড ম্যাচ জিতে ৮ উইকেটে।
একে একে ইয়য়ান বেল, মঈন আলী, জেমস টেইলর, হস বাটলার, ক্রিস ওকস, স্টুয়ার্ট ব্রড এবং স্টিভেন ফিন শিকার হন সাউদির।

গ্লেন ম্যাকগ্রা(অস্ট্রেলিয়া)
৭/১৫ প্রতিপক্ষ নামিবিয়া (২০০৩)
একটা সময় বিশ্ব ক্রিকেটকে এককভাবে শসন করেছে অস্ট্রেলিয়া। যার মূল কারণ ছিল প্রজন্মের সেরা এ পেসার। ১৯৯৯-২০০৭ এক নাগারে তিনবার বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ী অস্ট্রেলিয়া দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন ম্যাকগ্রা এবং কেন তিনি এ তালিকার শীর্ষে সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই।

বিশ্বকাপে ১৮ দশমিক ২০ গড়ে ৩৯ ম্যাচে ম্যাকগ্রার শিকার ৭১ উইকেট। মেগা এ ইভেন্টে অধিকাংশ ম্যাচেই দলের মূল অস্ত্র ছিলেন তিনি এবং ২০০৩ বিশ্বকাপ ফাইনালে শচিন টেন্ডুলকারের উইকেট শিকারের জন্য স্মরণীয় হয়ে আছেন ম্যাকগ্রা। তবে গত ৪৩ বছরের বিশ্বকাপ ইতিহাসে সেরা বোলিং ফিগারের মালিক তিনিই।

২০০৩ বিশ্বকাপে ২৭ ফেব্রুয়ারী পচেফস্ট্রমে অনুষ্ঠিত ম্যাচে আগে ব্যাট করে ৬ উইকেটে ৩০১ রান করে অস্ট্রেলিয়া। এরপর নামিবিয়া ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৪৫ রানে গুটিয়ে গেলে ২৫৬ রানে জয় পায় অসিরা।
প্রথম ওভারেই নামিবিয়া ওপেনার জান-বেরি বারগারকে আউট করেন ম্যাকগ্রা। এর পর আরো ছয় ব্যাটসম্যানকে আউট করেন তিনি। ম্যাচে মোট সাত ওভার বোলিং করে চারটি মেডেনসহ ১৫ রানে ৭ উইকেট নেন ম্যাকগ্রা।

এন্ডি বিচেল (অস্ট্রেলিয়া)
৭/২০ প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড (২০০৩)
ম্যাকগ্রার কীর্তি গড়ার মাত্র চার দিন পরই পোর্ট এলিজাবেথে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে দারুণ বোলিং করেন তার সতীর্থ এন্ডি বিচেল।
ইংল্যান্ড আগে ব্যাটিং করে ৮ উইকেট হারিয়ে মাত্র ২০৪ রান করে। যার মধ্যে বিচেল একাই নেন ৭ উইকেট। শেষ পর্যন্ত ২ উইকেটে জয় পায় অস্ট্রেলিয়া।
নিক নাইট, মাইকেল ভন, নাসের হুসেইন, এ্যালেক স্টুয়ার্ট, এ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ এবং এ্যাশলে জাইলসের উইকেট শিকার করে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন আপ ধ্বসিয়ে দেন বিচেল।

উইনস্টন ডেভিস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
৭/৫১ প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া (১৯৮৩)
আইসিসি বিশ্বকাপে এক ম্যাচে সাত উইকেট শিকার করা প্রথম বোলার ওয়েস্ট ইন্ডিজের উইনস্টন ডেভিস। কেবল বিশ্বকাপে সাত উইকেট শিকার করা প্রথম বোলারই নন, সে সময় সেরা ওয়ানডে বোলিং ফিগারের মালিকও তিনি। নিজের প্রথম বিশ্বকাপ ম্যাচেই এমন অনন্য রেকর্ড গড়েন উইনস্টন।

দশ দশমিক তিন ওভাওে (সে সময় বিশ্বকাপ ছিল ৬০ ওভারে) ৫১ রানে ৭ উইকেট শিকার করেছিলেন তিনি। তার এমন অসাধারন বোলিং নৈপুন্যেই তৎকালীন চ্যাম্পিয়ন ক্যারিবিয়রা টুর্নামেন্টে প্রথম জয় পেয়েছিল।

২০০৩ বিশ্বকাপে ম্যাকগ্রার সাত উইকেট শিকারের আগে প্রায় ২০ বছর অক্ষুন্ন ছিল উইনস্টনের রেকর্ড।


শেয়ার করুন :


আরও পড়ুন

আইসিসিকে ভারতের হুমকি

আইসিসিকে ভারতের হুমকি

সবকিছু শেষ হয়ে গেছে: রিয়াল ডিফেন্ডার কারভাজাল

সবকিছু শেষ হয়ে গেছে: রিয়াল ডিফেন্ডার কারভাজাল

স্মিথ, ওয়ার্নারকে নিয়ে বিশ্বকাপ জিততে পারে অস্ট্রেলিয়া : শেন ওয়ার্ন

স্মিথ, ওয়ার্নারকে নিয়ে বিশ্বকাপ জিততে পারে অস্ট্রেলিয়া : শেন ওয়ার্ন

বিশ্বকাপে সহ-অধিনায়কের দায়িত্ব পেলেন গেইল

বিশ্বকাপে সহ-অধিনায়কের দায়িত্ব পেলেন গেইল