সহজ জয়ে সিরিজ শুরু করলো ইংল্যান্ড

স্পোর্টসমেইল২৪ স্পোর্টসমেইল২৪ প্রকাশিত: ০৬:৩৫ এএম, ০১ নভেম্বর ২০১৯
সহজ জয়ে সিরিজ শুরু করলো ইংল্যান্ড

ছবি : গেটি ইমেজ

সহজ জয় দিয়ে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-২০ সিরিজ শুরু করলো সফরকারী ইংল্যান্ড। শুক্রবার সিরিজের প্রথম ম্যাচে ইংলিশরা ৭ উইকেটে হারিয়েছে কিউইদের। এ জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে ইংল্যান্ড।

ক্রাইস্টচার্চে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয় ওয়ানডে বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড। ব্যাট হাতে নেমে ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই প্রথম উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। ওপেনার মার্টিন গাপটিলকে ২ রানের বেশি করতে দেননি ইংল্যান্ডের বাঁ-হাতি পেসার স্যাম কারান।

দলীয় ৬ রানে গাপটিলকে হারানোর পর দলের রানের চাকা সচল করেন আরেক ওপেনার কলিন মুনরো ও উইকেটরক্ষক টিম সেইফার্ট। দ্রুত রান তোলার চেষ্টা করে সফলও হন এই জুটি। তবে পাওয়ার প্লে’র শেষ বলে বিচ্ছিন্ন হতে হয় মুনরো-সেইফার্টকে। ১টি চার ও ২টি ছক্কায় ২০ বলে ২১ রান করা মুনরোকে নিজের প্রথম শিকার বানান ইংল্যান্ডের পেসার ক্রিস জর্ডান। জুটিতে ১৯ বলে ৩৩ রান যোগ করেন মুনরো-সেফার্ট।

এরপর কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে নিয়ে আবারও বড় জুটির চেষ্টা করেন সেইফার্ট। এখানেও সফল হন তারা। এ জুটিতেও ৩৩ রান আসার পর বিচ্ছিন্ন সেইফার্ট-ডি গ্র্যান্ডহোম। ১৪ বলে ১৯ রান করা গ্র্যান্ডহোমকে বিদায় দেন ইংল্যান্ডের স্পিনার আদিল রশিদ।

উইকেটের সাথে মানিয়ে নেওয়া ও দু’টি জুটিতে ভালো অবদান রাখলেও নিজের ইনিংসটি বড় করতে পারেননি সেইফার্ট। ১টি করে চার-ছক্কায় ২৬ বলে ব্যক্তিগত ৩২ ও দলীয় ৯৩ রানে জর্ডানের দ্বিতীয় শিকার হন।

১৪তম ওভারে প্রথম বলে চতুর্থ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। ফলে শেষ ৪১ বল থেকে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দেয়ার দায়িত্ব পান রস টেইলর ও ড্যারিল মিচেল। বড় স্কোর এনে দিতে না পারলেও লড়াই করার মত পুঁজি এনে দেন টেইলর ও মিচেল।

৩৮ বলে ৫৬ রানের জুটি গড়েন তারা। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৫৩ রানের সংগ্রহ পায় নিউজিল্যান্ড। ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ৩৫ বলে ৪৪ রান করে আউট হন টেইলর। ১টি চার ও ২টি ছক্কায় ১৭ বলে ৩০ রানে অপরাজিত মিচেল। ইংল্যান্ডের জর্ডান ২৮ রানে ২ উইকেট নেন।

জবাবে রানের তোলার গতি বেশি না হলেও শুরুটা ভালোই হয় ইংল্যান্ডের। বলের সাথে পাল্লা দিয়ে ৩৪ বলে ৩৭ রানের জুটি গড়েন ইংলিশ দুই ওপেনার জনি বেয়ারস্টো ও ডেভিড মালান। এর মধ্যে মাত্র ১১ রান অবদান ছিলো মালানের। ১৩ বলে মোকাবেলা করে মাত্র ২টি চার মারেন তিনি।

এরপর জেমস ভিন্সকে নিয়ে রানের চাকা সচল রেখে দলকে লড়াইয়ে রাখেন বেয়ারস্টো। তবে জুটিতে ৩১ রান আসার পরই বিচ্ছিন্ন তারা। ২৮ বলে ৩৫ রান করা বেয়ারস্টোকে আউট করেন ইংল্যান্ডের প্রথম উইকেট শিকারী স্বাগতিকদের বাঁ-হাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনার। আউট হওয়ার আগে বেয়ারস্টো ৫টি চার ও ১টি ছক্কা দিয়ে নিজের ইনিংস সাজান।

বেয়ারস্টোর বিদায়ের পর ক্রিজে ভিন্সের সঙ্গী হন নিয়মিত অধিনায়ক ইয়ান মরগান। জুটি বেঁধেই নিউজিল্যান্ডের বোলারদের চড়াও হন দু’জন। ফলে ১৪তম ওভারের দ্বিতীয় বলেই শতরানে পৌঁছে যায় ইংল্যান্ডের সংগ্রহ। বাউন্ডারি দিয়ে দলের স্কোর তিন অংকে পৌঁছানোর সাথে-সাথে ৯ ম্যাচের টি-২০ ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মত হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদও নেন ভিন্স।

হাফ-সেঞ্চুরির পর ব্যক্তিগত ৫৯ রানে থেমে যান ভিন্স। স্যান্টনারের তৃতীয় শিকার হওয়া আগে ৩৮ বল মোকাবেলা করে ৭টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন ভিন্স। মরগানের সাথে ৩৩ বলে ৫৪ রানের জুটি গড়েন তিনি।

ভিন্স যখন আউট হন তখন জয়ের জন্য ২৮ বলে ৩২ রান দরকার ছিল ইংল্যান্ডের। দলের বাকি প্রয়োজন মিটিয়েছেন মরগান ও স্যাম বিলিংস। ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে চার ও তৃতীয় ছক্কা মেরে ইংল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করেন মরগান।

তখনও ম্যাচের ৯ বল বাকি ছিল। ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় ২১ বলে অপরাজিত ৩৪ রান করেন মরগান। ১১ বলে ১৪ রানে অপরাজিত থাকেন বিলিংস। নিউজিল্যান্ডের স্যান্টনারের ২৩ রানে ৩ উইকেট শিকার শেষ পর্যন্ত বিফলে যায়। ম্যাচ সেরা হয়েছেন ইংল্যান্ডের ভিন্স।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
নিউজিল্যান্ড : ১৫৩/৫, ২০ ওভার (টেইলর ৪৪, সেইফার্ট ৩২, জর্ডান ২/২৮)
ইংল্যান্ড : ১৫৪/৩, ১৮.৩ ওভার (ভিন্স ৫৯, বেয়ারস্টো ৩৫, স্যান্টনার ৩/২৩)।

ফল : ইংল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী
ম্যাচ সেরা : জেমস ভিন্স (ইংল্যান্ড)
সিরিজ : পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে ইংল্যান্ড।


শেয়ার করুন :


আরও পড়ুন

ইডেন টেস্টের জন্য ৭২টি গোলাপী বল বানাচ্ছে ভারত

ইডেন টেস্টের জন্য ৭২টি গোলাপী বল বানাচ্ছে ভারত

বিশ্বকাপের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন মরগান

বিশ্বকাপের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন মরগান

নেইমারকে পেতে বার্সেলোনার বেতন পরিশোধেও পরিবর্তন

নেইমারকে পেতে বার্সেলোনার বেতন পরিশোধেও পরিবর্তন

হেলিকপ্টার শো দিয়ে শুরু হবে দিবা-রাত্রির ইডেন টেস্ট

হেলিকপ্টার শো দিয়ে শুরু হবে দিবা-রাত্রির ইডেন টেস্ট