ফিরতে মরিয়া মোরাতা-লুকাকু

স্পোর্টস মেইল২৪ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:০৫ এএম, ০৫ নভেম্বর ২০১৭
ফিরতে মরিয়া মোরাতা-লুকাকু

প্রিমিয়ার লিগের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে রোববার মুখোমুখি হবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও চেলসি। এ ম্যাচকে সামনে রেখে নিজ নিজ দলকে শিরোপা দৌঁড়ে ফিরিয়ে আনতে দুই দলের তারকা খেলোয়াড় আলভারো মোরাতা ও রোমেলু লুকাকু নিজেদের ফর্ম ফিরে পেতে চাপের মুখে পড়েছেন।

চেলসি ফরোয়ার্ড মোরাতা ও ইউনাইটেড তারকা লুকাকু উভয় এবারের মৌসুমে দলবদলের পরে নতুন ক্লাবের হয়ে শুরুতেই নিজেদের দারুনভাবে প্রমাণ করেছেন। কিন্তু প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির সাথে লড়াই চালিয়ে যেতে চেলসি ও ইউনাইটেড উভয় ক্লাবকেই বেশ বেগ পেতে হচ্ছে। আর ক্লাবের এই দুঃসময়ে মোরাতা ও লুকাকু ফর্মহীনতায় ভুগছেন যা নিয়ে দুটি ক্লাবই বেশ দুঃশ্চিন্তায় রয়েছে। রোববার স্ট্যামফোর্ড ব্রীজে স্পট লাইট থাকবে এই দুই তারকার উপর।

এভারটন থেকে লুকাকুকে ইউনাইটেডে নিতে কোচ হোসে মরিনহোর আগ্রহই বেশি কাজ করেছে। যে কারণে ৭৫ মিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করতেও ইউনাইটেড কার্পণ্য করেনি। বেলজিয়ামের এই তারকার প্রতি ব্লুজ বস অ্যান্টনিও কন্টেরও চোখ ছিল। প্রথম ১০ ম্যাচে ১১ গোল লুকাকু মরিনহোর আস্থার প্রতিদানও দিয়েছেন। কিন্তু ২৪ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার সেপ্টেম্বর মাসের শেষ থেকে এ পর্যন্ত ছয় ম্যাচে কোন গোল পাননি।

দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য স্ট্রাইকার হিসেবে তার এই ফর্মহীনতা ইউনাইটেড সমর্থকরা কোনভাবেই মেনে নিতে পারছে না। গত সপ্তাহে টটেনহ্যামের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ের ম্যাচটিতে ওল্ড ট্যাফোর্ডের এই স্ট্রাইকারকে খুব একটা সমর্থন দেয়নি স্বাগতিক দর্শকরা। যদিও লুকাকু নিজের ফর্ম ফিরে পাবার জন্য কঠোর পরিশ্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ সম্পর্কে লুকাকু বলেছেন, কেউ আমাকে শেষ হয়ে যাওয়া খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করতে পারে না। একেবারে উপরে উঠে হঠাৎ করেই পড়ে যাওয়া নয় বরং আমি ক্যারিয়ারকে বছরের পর বছর ধরে উন্নত করেছি। আমি জানি আমার মধ্যে প্রতিভা আছে। কিন্তু আমাকে আরো বেশি করে সহযোগিতা করতে হবে। একটি বিষয় আমি নিশ্চিত করতে চাই, যখন আমার দল কঠিন পরিস্থিতিতে থাকবে তখন যেন তারা আমার কথা মনে রাখে।

গ্রীষ্মকালীণ দলবদলের বাজারে লুকাকুকে না পেয়ে কন্টে সান্ত্বনা হিসেবে মোরাতার প্রতি আগ্রহী হয়। প্রথম সাত ম্যাচে সাত গোল করে মোরাতাও অবশ্য জানান দিয়েছিল কেন চেলসি ৫৮ মিলিয়ন পাউন্ড খরচ করে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে তাকে উড়িয়ে এনেছে। কিন্তু লুকাকুর মতই ২৫ বছর বয়সী স্প্যানিয়ার্ড শেষ ৬ ম্যাচে গোলবিহীন রয়েছেন। এর ফলে তিনিও সমালোচনার মুখে পড়েছেন। এমনকি তাকে নিয়ে এমন কথাও উঠেছে লন্ডনের ব্যস্ত জীবনযাত্রায় তিনি নাকি নিজেকে মানিয়ে নিতে পারছেন না, আর সে কারনে দীর্ঘদিন চেলসিতে থাকার কোন ইচ্ছায় তার নেই।

এই পরিস্থিতিতে আগামীকাল রোববারের ম্যাচে সমালোচকদের মুখ বন্ধ করার একমাত্র উপায় হচ্ছে নিজেদের ফর্মকে পুনর্জাগরিত করা। উভয় খেলোয়াড়ের পিছনে দলবদলের বাজারে যে পরিমাণ অর্থ ব্যয় করা হয়েছে তার প্রতিদান তাদেরকেই দিতে হবে। আর তার মাধ্যমেই ইউনাইটেড ও চেলসিও সিটির সাথে লড়াইয়ে ফিরে আসতে পারবে। চতুর্থ স্থানে থাকা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন চেলসি দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইউনাইটেডের থেকে চার পয়েন্ট ও শীর্ষে থাকা সিটির থেকে ৯ পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছে।

গত মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়নস লিগে রোমার কাছে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছে চেলসি। তবে ওয়ার্টফোর্ড ও বোর্নেমাউথের বিপক্ষে লিগে টানা দুই ম্যাচে জয়ী হয়ে লিগে জয়ের ধারা ধরে রেখেছে। অন্যদিকে সিটির থেকে পাঁচ পয়েন্ট পিছিয়ে থাকা ইউনাইটেড শেষ তিনটি লিগে ম্যাচে মাত্র একটিতে জয়ী হয়েছে। তবে আশার কথা হচ্ছে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় শেষ তিনটি ম্যাচে টানা জয় পেয়েছে। এর মধ্যে ছিল চ্যাম্পিয়নস লিগে বেনফিকার বিপক্ষে জয়। চেলসিতে ফেরার দিনটি অবশ্য মরিনহো স্মরণীয় করে রাখতে চান। এই ক্লাবের হয়ে তিনটি ইংলিশ শিরোপা জিতলেও দুইবার ক্লাব তাকে বহিষ্কার করেছে। তবে চেলসির বিপক্ষে ম্যাচটিকে আলাদা হিসেবে দেখতে নারাজ মরিনহো। তিনি বলেন, এটা বড় কোন বিষয় নয়। ফুটবলে এটা খুবই স্বাভাবিক। একদিন কেউ এক ক্লাবে থাকবে, আবার অন্যদিন অন্য ক্লাবে।

চেলসি বস কন্টে বলেছেন, এখন সব দলের জন্য সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে তারা সবাই শিরোপার জন্য লড়াই করতে চাচ্ছে। আর সেখানে বড় সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। সিটি যদি এভাবে সামনে এগিয়ে যেতে থাকে তবে শিরোপার জন লড়াই চালিয়ে যাওয়া কঠিন হবে।


শেয়ার করুন :