বিশ্বাস করতেই পারছেন না তিনি ‘অ্যাশেজ হিরো’

স্পোর্টসমেইল২৪ স্পোর্টসমেইল২৪ প্রকাশিত: ১০:৪৮ পিএম, ২৭ আগস্ট ২০১৯
বিশ্বাস করতেই পারছেন না তিনি ‘অ্যাশেজ হিরো’

অ্যাশেজের তৃতীয় টেস্টে বেন স্টোকসকে দারুণভাবে সহযোগিতা করেছেন জ্যাক লিচ। ‘গ্রাম থেকে ওঠে আসা ক্রিকেটার’ এ ক্রিকেটা ওই ম্যাচে জয়ের ‘নায়ক’ বনে চলে গেছেন। আর তাকে নিয়ে শুরু হয়েছে বন্দনা।

রোববার (২৬ আগস্ট) হিডিংলিতে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাট হাতে লিচ যখন মাঠে নামছিলেন, তখন ইংল্যান্ডের সংগ্রহ ছিল ৯ উইকেটে ২৮৬ রান। ৩৫৯ রানের লক্ষ্য পূরণ করে জয়ের জন্য তখনও ৭৩ রান দরকার ছিল ইংল্যান্ডের। দখন অলরাউন্ডার বেন স্টোকস ছিলেন ৬১ রানে অপরাজিত।

দলকে বিজয়ী করার গুরু দায়িত্ব দারুণ দক্ষতার সঙ্গেই পালন করেছেন স্টোকস। তবে দলের জয়ের জন্য তার অপরাজিত ১৩৫ রানের পেছনে দারুণ ভূমিকা রেখে ‌ওই ম্যাচের ‘নায়ক’ হয়েছেন জ্যাক লিচ। কারণ, তিনিই ছিলেন শেষ ব্যাটসম্যান। স্টোকসের অপরাজিত ১৩৫ রানে এক উইকেটে জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড। আর এ জয়ের ফলে ৫ ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতায় ফিরেছে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া।

১৯৮১ সালেও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইংল্যান্ডকে এক উইকেটে জয় এনে দিয়েছিলেন ইয়ান বোথাম। এ সময় তাকে শেষ উইকেটে সমর্থন জুগিয়েছিলেন গ্রাহাম ডিলে। ২০০৫ সালে অপর প্রান্ত থেকে অ্যাশলে গিলের সহযোগিতা না পেলে দলকে অ্যাশেজ শিরোপা এনে দিতে পারতেন না কেভিন পিটারসেন। একইভাবে লিচ যদি সহায়তা করতে না পারতেন তাহলে স্টোকসের পক্ষে সম্ভব হতো না ম্যাচ জেতানো। শেষ উইকেট জুটিতে তারা সংগ্রহ করেন ৭৬ রান।

স্টোকস সাবলিলভাবে ব্যাট চালালেও ওই জুটিতে লিচের ভূমিকাও কম ছিল না। ব্যাটিংয়ে ১১ গড়ের অধিকারী লিচ ১৭ বলের মোকাবেলায় অপরাজিত থেকে ‘অমূল্য’ একটি রানও সংগ্রহ করেছেন। গত মাসে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত লর্ডস টেস্টে নাইটওয়াচম্যান হিসেবে মাঠে নেমে দীর্ঘ এক ঘণ্টা ক্রিজে টিকে ছিলেন লিচ। সংগ্রহ করেছেন ৯২ রান।

রোববার শুধুমাত্র একটিবার সত্যিকারের ভয় পেয়েছিলেন তিনি। জয় থেকে যখন স্বাগতিকরা মাত্র দুই রান দূরে তখন রান সংগ্রহের চেষ্টা করতে গিয়ে বিপদে পড়েছিলেন লিচ। যদিও নাথান লিয়ঁর ব্যর্থতার সুযোগে ফের নিজ অবস্থানে ফিরতে পেরেছিলেন। শেষ পর্যন্ত অবশ্য একটি রান নিয়ে ম্যাচকে সমতায় পৌঁছে দিয়েছিলেন লিচ। এরপর ফাস্ট বোলার প্যাট কামিন্সের বলে বাউন্ডারি হাকিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন স্টোকস।

খেলা শেষে লিচ বলেন, ‘এমন একটি পরিবেশের অংশ হতে পারাটা দারুণ। কারণ আমাকে দেখতে অনেকটাই ‘গ্রাম থেকে ওঠে আসা ক্রিকেটারের’ মত লাগছিল, আমার গ্লাস এবং বেল্ট দেওয়া টুপির কারণেও। সবাইকে অনেকটা পেশাদার মনে হলেও আমাকে তারা এমনটাই মনে করেছে।’


শেয়ার করুন :


আরও পড়ুন

স্টোকসের কাছে বোন বিয়ে দিতেন সোয়ান

স্টোকসের কাছে বোন বিয়ে দিতেন সোয়ান

বোল্ট-বুমরাহ-আর্চারের উন্নতি, দশে নেই কোন বাংলাদেশি

বোল্ট-বুমরাহ-আর্চারের উন্নতি, দশে নেই কোন বাংলাদেশি

সাকিবকে সরিয়ে দিলেন স্টোকস

সাকিবকে সরিয়ে দিলেন স্টোকস

স্টোকসের হেলমেট ভাঙলেন হ্যাজলউড

স্টোকসের হেলমেট ভাঙলেন হ্যাজলউড