মুশফিক-তামিমের মধ্যে চলে ইতিবাচক প্রতিদ্বন্দ্বিতা

স্পোর্টসমেইল২৪ স্পোর্টসমেইল২৪ প্রকাশিত: ১০:১০ এএম, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০
মুশফিক-তামিমের মধ্যে চলে ইতিবাচক প্রতিদ্বন্দ্বিতা

বাংলাদেশ দলের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম সতীর্থ ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালকে নিজের ফেভারিট ব্যাটসম্যান উল্লেখ করে বলেছেন, তার (তামিম) সঙ্গে সবসময় নিজের প্রতিদ্বন্দ্বিত চলে। তবে সেটি ইতিবাচক প্রতিদ্বন্দ্বিতা।

টেস্ট ক্রিকেটে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যান হিসেবে তামিমের শীর্ষস্থান কেড়ে নিয়েছেন মুশফিক। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সোমবার অপরাজিত ২০৩ রান তুলে এ কীর্তি গড়েন তিনি। খর্বকায় এ ব্যাটসম্যানের ৭০ ম্যাচ থেকে বর্তমান রান ৪৪১৩। অন্যদিকে ৬০ ম্যাচ থেকে তামিমের রান ৪৪০৫।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো মুশফিকুর রহিম বলেন, ‘বাংলাদেশে তামিম আমার সবচেয়ে ফেভারিট ব্যাটসম্যান। তার সঙ্গে আমার সারাক্ষণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা লেগে থাকে। তবে সেটি ইতিবাচক প্রতিদ্বন্দ্বিতা।’

তিনি বলেন, ‘তামিম সবসময় আমাকে অনুপ্রাণীত করেন। আমিও তাকে উৎসাহিত করি। খেলোয়াড়দের মধ্যে যদি ইতিবাচক প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকে তাহলে সেটি দলকে সহায়তা করে। আমি আন্তরিকভাবে চাই তামিম যেন বাংলাদেশের সর্বাধিক রান সংগ্রহকারী হতে পারেন। একই সঙ্গে আমি এটিও চাই তামিমের চেয়ে যেন এক রানে হলেও এগিয়ে থাকতে পারি।’

মুশফিক বলেন, ‘আমাদের দলের সব ব্যাটিং রেকর্ড হয়েছে তামিমকে দিয়ে। তিনি সবসময় মাইলফলক সৃষ্টি করেছেন। সম্প্রতি প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটে ৩৩৪ রান করেছেন তামিম। আমি তাকে বলেছি তার ওই রেকর্ডের কছাকাছি যেতে চাই।’

মুশফিক জানান, সাকিব ও তামিমের মত সাবলিল নন তিনি। যে কারণে সবসময় ভালো কিছু করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে থাকেন। তিনি বলেন, ‘সত্যিকার অর্থে আমি যখন টিভিতে আমার খেলার উল্লেখযোগ্য অংশ দেখি, তখন ভালো বোধ করি না। সবসময় ভাবি যদি তামিমের মত কভার ডাইভ খেলতে পারতাম কিংবা সাকিবের মত কাট শট খেলতে পারতাম..। আমি নিজের সীমাবদ্ধতা জানি, তাই ভালো করার জন্য পরিশ্রম করি।’

সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানোর ব্যাপারে প্রত্যয়ী ছিলেন মুশফিক। সাবেক এ অধিনায়ক বলেন, ‘আপনি সবসময় এমন একটি দিন পাবেন না। সুযোগ পেলে আমি সবসময়ই চেষ্টা করি বড় একটি ইনিংস খেলার জন্য। বিদেশের মাটিতে আমরা সচরাচর কঠিন কন্ডিশনের মুখোমুখি হয়ে থাকি। সেখানে ৫০ রান করাই কঠিন হয়ে উঠে। যে কারণে ১০০ রান করে আমি থামতে চাইনি। ডাবল সেঞ্চুরির চেষ্টা করেছি।’


শেয়ার করুন :


আরও পড়ুন

জিম্বাবুয়ের বোলিং চ্যালেঞ্জিং ছিল না : মুশফিক

জিম্বাবুয়ের বোলিং চ্যালেঞ্জিং ছিল না : মুশফিক

মুশফিকের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি

মুশফিকের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি

নাঈমের সাফল্যে তিন মন্ত্র

নাঈমের সাফল্যে তিন মন্ত্র

বদলে যাওয়ার নেপথ্যের রহস্য জানালেন শান্ত

বদলে যাওয়ার নেপথ্যের রহস্য জানালেন শান্ত