ডকট্রোভ: ফুটবল রেফারিং করা ডোমিনিকান ক্রিকেট আম্পায়ার

পার্থ প্রতীম রায় পার্থ প্রতীম রায় প্রকাশিত: ০২:১৭ এএম, ০৪ জুলাই ২০২২
ডকট্রোভ: ফুটবল রেফারিং করা ডোমিনিকান ক্রিকেট আম্পায়ার

দীর্ঘ পাঁচ বছর ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের দেশ ডোমিনিকায় ফিরেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। রোববার (৩ জুলাই, ২০২২) ডোমিনিকার জাতীয় স্টেডিয়াম উইন্ডসর পার্কে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি চলাকালীন মাঠে উপস্থিত বিলি ডকট্রোভ। ক্রিকেট সমর্থকদের অবশ্য তাকে চেনার কথা নয়, কারণ তিনি কখনো ক্রিকেটই খেলেননি। অবশ্য ক্রিকেট না খেললেও ছিলেন আইসিসির এলিট প্যানেল আম্পায়ার। শুধু এলিট প্যানেল আম্পায়ার নয়, ফুটবল বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ পরিচালনার অভিজ্ঞতাও আছে তার। 

ডোমিনিকায় জন্ম নেওয়া বিলি ডকট্রোভ ছোট বেলা থেকেই ছিলেন ফুটবলের পাড় ভক্ত। ফুটবলে ইংলিশ ক্লাব লিভারপুলকে সমর্থন দেওয়া অবশ্য ডোমিনিকায় ক্লাব ক্রিকেটও খেলতেন। যদিও ক্রিকেটে তার হাতে খড়ি অনেক পরে। ক্রিকেট খেললেও সবসময়ই তার পছন্দের শীর্ষে ছিল ফুটবল। তবে ফুটবল নয় জীবিকার জন্য বেছে নিয়েছিলেন ক্রিকেটকে।

পেশাদার জীবনের শুরুতে ফুটবল ম্যাচ পরিচালনাতে আগ্রহী ছিলেন বিলি ডকট্রোভ। কিন্তু স্কুল জীবনের একটি ঘটনা তাকে ক্রিকেট মাঠে নিয়ে আসে। মূলত ওইটাই ছিল তার জীবনে প্রথম ক্রিকেট ম্যাচ পরিচালনার ঘটনা।

১৮ বছর বয়সী ডকট্রোভ শখের বসে দেখতে গিয়েছিলেন স্কুল ক্রিকেট ম্যাচ। সেই ম্যাচের নির্ধারিত দুই আম্পায়ারের একজন নির্ধারিত সময়ে মাঠে আসতে না পারায় ডকট্রোভকে ম্যাচ পরিচালনার প্রস্তাব দেওয়া হয়। তবে পুরো ম্যাচের জন্য, যেটুকু সময় নির্ধারিত আম্পায়ার মাঠে না আসবেন ততক্ষণ সময়ের জন্য। তবে এই করতে গিয়ে ডকট্রোভ দায়িত্ব পালন করেন মধ্যাহ্ন বিরতি পর্যন্ত।

এই ঘটনার পরের দিন ডকট্রোভ কোনো কারণ ছাড়াই ক্রিকেট আইনের একটি বই যোগাড় করে ফেলেন। এমনকি ক্রিকেট আম্পায়ার হওয়ার কোনো ইচ্ছা না থাকলেও মনের অজান্তে আয়ত্বে নিয়ে নেন বইয়ের প্রতিটি পাতা।

ক্রিকেট আইনের এই বই ও স্যার গ্যারি সোবার্সের ক্রিকেট খেলা, সব মিলিয়ে ব্যাট-বলের লড়াইয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেন ডকট্রোভ। ১৮ বছর বয়সে শুরু করেন ক্রিকেট খেলা, তবে সেটা শুধুমাত্রই শখের বসে। তাই ক্লাব ক্রিকেটে গণ্ডি পেরোতে পারেননি তিনি।

sportsmail24

স্কুল জীবনের এই ঘটনা ডকট্রোভকে ক্রিকেট আম্পায়ারিংয়ের প্রতি আগ্রহী করে তুললেও সেটা প্রগাড় ছিল না। বরং, ফুটবল রেফারিংয়ে যোগ দেওয়ার তীব্র ইচ্ছা নিজের মধ্যে পুষে রেখেছিলেন। এই উদ্দেশে ১৯৭৬ সালে যোগ দেন ডোমিনিকান রেফারিজ অ্যাসোসিয়েশনে। সেখান থেকেই ফুটবল ম্যাচ পরিচালনার হাতেখড়ি তার।

ডোমিনিকার ঘরোয়া ফুটবল পরিচালনার পর ১৯৯৫ সালে তার সামনে আসে আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনার। এমনকি আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচ পরিচালনা করে তিনিই হন ডোমিনিকার প্রথম ফিফা রেফারি।

দুই বছরের ফুটবল রেফারি ক্যারিয়ারে শুধু আন্তর্জাতিক ম্যাচ নয়, বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ পরিচালনারও সুযোগ পেয়েছিলেন। ১৯৯৮ ফ্রান্স বিশ্বকাপের কনকাকাফ অঞ্চলের বাছাইপর্বে গায়ানা ও গ্রেনাডার মধ্যকার ম্যাচ পরিচালনার সুযোগ মেলে তার। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল ১৯৯৬ সালে, অর্থাৎ অভিষেকের এক বছর পরেই তার সুযোগ মেলে বড় ম্যাচ পরিচালনার।

sportsmail24

ফুটবল রেফারি হিসেবে খুব দ্রুতই সাফল্য পেলেও এটাকে নিজের পেশা হিসেবে বেছে নেননি বিলি ডকট্রোভ। উল্টো নিজের শখের রেফারিং ছেড়ে দিয়ে বেছে নিয়েছিলেন ক্রিকেট আম্পায়ারিং ক্যারিয়ার।

এই বিষয়ে ডকট্রোভ বলেছিলেন, “আমার মনে হয় একজন ক্যারিবিয়ান হিসেবে ক্রিকেটকেই আমি বেশি উপভোগ করবো। তাই রেফারিং ছেড়ে আম্পায়ারিংয়ে এসেছি। যদিও আমি ভাগ্যক্রমে আম্পায়ারিংয়ে সুযোগ পাওয়া লোক।”

১৯৭৬ সালে ডোমিনিকান রেফারিজ অ্যাসোসিয়েশনে যোগ দেওয়া ডকট্রোভ এর এক বছর আগে যোগ দিয়েছিলেন আম্পায়ার্স অ্যাসোসিয়েশনে। অবশ্য তাকে জোর করে আম্পায়ার্স অ্যাসোসিয়েশনে নিয়ে এসেছিলেন ফিলিপ অ্যালাইনে। তিনিই প্রথম ডকট্রোভকে স্কুল ক্রিকেটে প্রথম আম্পায়ারিং করিয়েছিলেন।

sportsmail24

আম্পায়ার্স অ্যাসোসিয়েশনে যোগ দেওয়ার পর ১৯৯১ সালে প্রথমবারের মতো ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম শ্রেণির ম্যাচ পরিচালনার সুযোগ পান বিলি ডকট্রোভ। প্রথম দিকে অবশ্য ক্রিকেট মাঠে আম্পায়ারিং ও ফুটবল মাঠে রেফারিং, দু’টোই সমান তালে চালিয়ে গিয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত ১৯৯৭ সালে ফুটবল ছেড়ে ক্রিকেটেই থিতু হন।

ফুটবল ছেড়ে ক্রিকেটে থিতু হওয়ার পরের বছরই পর প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনার সুযোগ পান ডকট্রোভ। কিংস্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ইংল্যান্ডের মধ্যকার ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক আঙিনায় পা রাখেন তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরুর ছয় পর ২০০৪ সালে যুক্ত হন আইসিসির আন্তর্জাতিক প্যানেল আম্পায়ার তালিকায়। এর দুই বছর পর উন্নতি পেয়ে আইসিসির এলিট আম্পায়ারদের তালিকায় যুক্ত হন ডকট্রোভ।

sportsmail24

১৪ বছরের আম্পায়ারিং ক্যারিয়ারে ৩৮ টেস্ট, ১১২ ওয়ানডে ও ১৭ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ পরিচালনার সুযোগ পেয়েছিলেন ডকট্রোভ। এর মধ্যে ছিল ২০০৫ সালে পাকিস্তান-ইংল্যান্ডের মধ্যকার বিতর্কিত ওভাল টেস্ট। যদিও ওই টেস্টে আম্পায়ারিংয়ের জন্য সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছিলেন ডকট্রোভের সঙ্গী হিসেবে মাঠে থাকা ড্যারেল হেয়ার।

পুরো ক্যারিয়ারে এই বিতর্কিত ম্যাচের পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ অনেক ম্যাচও পরিচালনা করেছিলেন। এর মধ্যে ২০১০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচও পরিচালনা করেছিলেন।

৬ বছর এলিট আম্পায়ার হিসেবে কাটানোর পর ২০১২ সালে ম্যাচ পরিচালনা ক্যারিয়ারকে বিদায় বলেন ডকট্রোভ। এর আগে অবশ্য ২০১০ সালে নিজ দেশের জাতীয় স্টেডিয়ামে তাকে দেওয়া হয় দারুণ এক সম্মান। ডোমিনিকার জাতীয় স্টেডিয়াম উইন্ডসর পার্কে তার নামে করা হয় প্লেয়ার্স স্ট্যান্ডের নাম। এছাড়া ২০০০ সালে জিতেছিলেন ডোমিনিকার সর্বোচ্চ জাতীয় সম্মানও।

sportsmail24

ডোমিনিকার উইন্ডসর পার্কে প্রত্যেকটি স্ট্যান্ডের নামকরণ করা হয়েছে দেশটির ক্রিকেটার ও ফুটবলারদের নামে। এখানে একটি ব্যতিক্রম স্ট্যান্ড হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে, সেটি হলো ‘বিলি ডকট্রোভ স্ট্যান্ড’।

তিনি ক্রিকেটার, ফুটবলার কিংবা কোনো অ্যাথলেট ছিলেন না। ডকট্রোভ ডোমিনিকার খেলাধুলার উন্নতি করেছেন ম্যাচ পরিচালনার দক্ষতা দিয়ে। এতেই তাকে স্মরণ করা হয়েছে, তার সম্মানার্থেই ডোমিনিকার জাতীয় স্টেডিয়ামের একটি স্ট্যান্ডের নামকরণ করা হয়েছে।

স্পোর্টসমেইল২৪/পিপিআর


শেয়ার করুন :


আরও পড়ুন

ইংল্যান্ড দলে বিস্ময় তৈরি করা রিচার্ড গ্লেসন 

ইংল্যান্ড দলে বিস্ময় তৈরি করা রিচার্ড গ্লেসন 

ফুটবলের সাথে আগাচ্ছে ব্রাজিলের নারী ক্রিকেট

ফুটবলের সাথে আগাচ্ছে ব্রাজিলের নারী ক্রিকেট

আলফিও বেসিল: ম্যারাডোনা ও মেসির কোচ

আলফিও বেসিল: ম্যারাডোনা ও মেসির কোচ

একই ক্লাব মাতানো দশ ‘পিতা-পুত্র’

একই ক্লাব মাতানো দশ ‘পিতা-পুত্র’