আবারও অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হবেন স্মিথ

স্পোর্টস মেইল২৪ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৩২ পিএম, ০৬ মে ২০১৮
আবারও অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হবেন স্মিথ

বল টেম্পারিংয়ের দায়ে নিজ দেশের ক্রিকেট বোর্ড কর্তৃক এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পাওয়া স্টিভেন স্মিথ ভবিষ্যতে আবারও অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হবেন বলে মনে করেন দেশটির সাবেক দলপতি ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) ডিরেক্টর মার্ক টেইলর। তিনি বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞা শেষে আবারও অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে নিজেদের সেরাটা দিবে স্মিথ এবং ভবিষ্যতে দলের অধিনায়কত্বও করবে সে।’

গত মার্চে কেপটাউনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় টেস্টে বল টেম্পারিং করেন তরুণ ব্যাটসম্যান ক্যামেরন ব্যানক্রফট। পরবর্তীতে এ কেলেঙ্কারীর দায় স্বীকার করেন দলের দুই সিনিয়র খেলোয়াড় স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। এমনকি সংবাদ সম্মেলনে ক্ষমাও চেয়েছেন স্মিথসহ অন্য দুই খেলোয়াড়। ক্ষমা চেয়েও পার পাননি তারা। সিএ স্মিথ ও ওয়ার্নারকে এক বছরের জন্য এবং ব্যানক্রফটকে ৯ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করে।

নিষেধাজ্ঞার কারণে বর্তমানে জাতীয় দলের বাইরে রয়েছেন স্মিথ, ওয়ার্নার ও ব্যানক্রফট। তবে অদূর ভবিষ্যতে তিনজন আবারও জাতীয় দলে ফিরবে বলে বিশ্বাস করেন টেইলর। এমনকি স্মিথ আবারও অস্ট্রেলিয়া দলের অধিনায়ক হবে বলে জানান তিনি।

রোববার নাইন নেটওয়ার্ক স্পোর্টসকে টেইলর বলেন, ‘আমি এখনো মনে করি, স্মিথ অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হতে পারবে। সে দেখেছে, কেপটাউন টেস্টের ঐ দিন কিছু একটা ঘটতে যাচ্ছে এবং সে প্রতিরোধ করেনি। এটা অবহেলাজনিত ভুল। সে প্রতারক নয়, সে একজন ভালো মানুষ। গত কয়েক মাসে যা ঘটেছে, সেটা আমার মতে বড় ক্ষতি।’

এক বছর নিষিদ্ধ হওয়ায় আগামী বছরের মার্চে আবারও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন স্মিথ। তবে ২০২০ সালের মার্চের আগে অধিনায়কত্ব করতে পারবেন না স্মিথ। কারণ এক বছরের পাশাপাশি দু’বছর অধিনায়কত্বেও উপরও নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন তিনি। তবে ভবিষ্যতে স্মিথকে অধিনায়ক হিসেবে দেখার ব্যাপারে বেশ আশাবাদি টেইলর।

২০১৪ সালে স্মিথের হাতে অধিনায়কত্বের ব্লেজার তুলে দেয়া টেইলর বলেন, ‘আমি মনে করি, সে যদি কখনো দলে ফিরে আসে এবং তাকে যদি অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক করা হয়, তবে সে আরও ভালো অধিনায়ক হতে পারবে।’

সদ্যই যুক্তরাষ্ট্রে এক মাসের ভ্রমণ শেষে দেশে ফিরেছেন স্মিথ। নিজ বাড়িতে ফিরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টগ্রামে প্রেমিকা ড্যানি উইলিসের সাথে ছবি দিয়ে একটি পোস্টে স্মিথ লিখেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বাড়িতে ফিরতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। আবার সব কিছুর মধ্যে ফিরতে বেশি দূরে নেই আমি। সব কিছুতে ফেরার সময় এসে গেছে। জীবনের এই কঠিন সময়ে সমগ্র বিশ্ব থেকে যে পরিমাণ ই-মেইল, চিঠি আমি পেয়েছি সেটি সত্যিই অসাধারণ। সবার বিশ্বাস ফিরিয়ে আনার জন্য আমাকে এখন অনেক কিছু করতে হবে। এ সময়ে বাবা, মা ও ড্যানি যেভাবে আমার পাশে থেকেছে তার জন্য ধন্যবাদ যথেষ্ট নয়। বিশ্বে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ পরিবার। তবুও ধন্যবাদ তোমাদের ভালোবাসা এবং পাশে থাকার জন্য।’

নতুন করে ক্রিকেটে ফেরার রসদ ভক্তদের কাছ থেকে পেয়েছেন স্মিথ। ভক্তদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে এক বছর পর হয়তো আবারও ক্রিকেট মাঠে দেখা যাবে তাকে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হবার আগেই যদি স্মিথের ফেরা হয়, তাতে অবাক হবার কিছুই থাকবে না। কারণ ড্যারেন লেহম্যানের পরিবর্তে সদ্যই অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের কোচের দায়িত্ব পেয়েছেন সাবেক ব্যাটসম্যান জাস্টিন ল্যাঙ্গার। দায়িত্ব নিয়েই তিন নিষেধাজ্ঞা খেলোয়াড়কে নিয়ে আশারবাণী শুনিয়েছেন ল্যাঙ্গার, ‘স্মিথ-ওয়ার্নার ও ব্যানক্রফটের জন্য আমার দরজা খোলা রয়েছে।’


শেয়ার করুন :


আরও পড়ুন

ভারতের সিদ্ধান্তে হতাশ ইয়ান চ্যাপেল

ভারতের সিদ্ধান্তে হতাশ ইয়ান চ্যাপেল

কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও বাদ পড়লেন স্মিথ-ওয়ার্নার

কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও বাদ পড়লেন স্মিথ-ওয়ার্নার

স্মিথ-ওয়ার্নারদের প্রতারক মনে করেন না গাঙ্গুলি

স্মিথ-ওয়ার্নারদের প্রতারক মনে করেন না গাঙ্গুলি

জীবনের জুটি বাধতে চলেছেন স্মিথ

জীবনের জুটি বাধতে চলেছেন স্মিথ